সাইয়েদুল ইস্তেগফার আরবি ও বাংলা অর্থ সহ

সাইয়েদুল ইস্তেগফার ( Sayyidul Istighfar ) সাইয়িদুল ইস্তিগফার এর ফজিলত:

যে এই দোয়াটি বারবার পড়বে আল্লাহ তায়ালা তার গুনাগুলো মাফ করে দিবেন। এবং আল্লাহ তায়ালা তাকে জান্নাতে প্রবেশ করার জন্য পথ সহজ করে দিবেন। রাসুলুল্লাহ (সা.) এটি সবসময় আমল করতেন। সাইয়েদুল ইস্তেগফারকে সবচেয়ে বড় ইস্তেগফার বলা হয়।

সাইয়েদুল ইস্তেগফার কি?

ইস্তেগফার শব্দের অর্থ হলো ক্ষমা চাওয়া অর্থাৎ আল্লাহতালার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করা । এ সম্পর্কে আল্লাহতালা পবিত্র কোরানে বলেছেন তোমরা তোমাদের রবের নিকট ক্ষমা প্রার্থনা করো নিশ্চ্য়ই তিনি মহা ক্ষমাশীল । ইস্তেগফার এর মধ্যে সর্বোত্তম হচ্ছে সাইয়েদুল ইস্তেগফার কিন্তু অনেকেই এটিকে বেহেস্ত ওয়াজিব হওয়ার আমল বলে থাকে।

সাইয়েদুল ইস্তেগফার আরবিঃ

اَللَّهُمَّ أَنْتَ رَبِّىْ لآ إِلهَ إلاَّ أَنْتَ خَلَقْتَنِىْ وَأَنَا عَبْدُكَ وَأَنَا عَلى عَهْدِكَ وَوَعْدِكَ مَا اسْتَطَعْتُ، أَعُوْذُبِكَ مِنْ شَرِّمَا صَنَعْتُ، أبُوْءُ لَكَ بِنِعْمَتِكَ عَلَىَّ وَأَبُوْءُ بِذَنْبِىْ فَاغْفِرْلِىْ، فَإِنَّهُ لاَيَغْفِرُ الذُّنُوْبَ إِلاَّ أَنْتَ

সাইয়েদুল ইস্তেগফার বাংলা উচ্চারণঃ

আল্লা-হুম্মা আনতা রব্বী লা ইলা-হা ইল্লা আনতা খালাক্বতানী, ওয়া আনা ‘আবদুকা ওয়া আনা ‘আলা ‘আহদিকা ওয়া ওয়া‘দিকা মাসতাত্বা‘তু, আ‘ঊযুবিকা মিন শার্রি মা ছানা‘তু। আবূউ লাকা বিনি‘মাতিকা ‘আলাইয়া ওয়া আবূউ বিযাম্বী ফাগফিরলী ফাইন্নাহূ লা ইয়াগফিরুয্ যুনূবা ইল্লা আনতা।

সাইয়েদুল ইস্তেগফার বাংলা অর্থঃ

হে আল্লাহ! তুমি আমার পালনকর্তা। তুমি ব্যতীত কোন উপাস্য নেই। তুমি আমাকে সৃষ্টি করেছ। আমি তোমার দাস। আমি আমার সাধ্যমত তোমার নিকটে দেওয়া অঙ্গীকারে ও প্রতিশ্রুতিতে দৃঢ় আছি। আমি আমার কৃতকর্মের অনিষ্ট হ’তে তোমার নিকটে আশ্রয় প্রার্থনা করছি। আমি আমার উপরে তোমার দেওয়া অনুগ্রহকে স্বীকার করছি এবং আমি আমার গোনাহের স্বীকৃতি দিচ্ছি। অতএব তুমি আমাকে ক্ষমা কর। কেননা তুমি ব্যতীত পাপসমূহ ক্ষমা করার কেউ নেই’।

ইস্তেগফার এর ফজিলত

বিশ্ব নবী হযরত মুহাম্মদ সাঃ বলেছেন ব্যক্তি সব সময় যে ইস্তেগফার এর সাথে লেগে থাকবে আল্লাহ তালা তাকে ৫টি পুরুস্কার দিবেন ।

১। বিপদে পড়লে বিপদ থেকে আল্লাহ তালা উদ্ধার করবে ।
২। যেকোনো ধরণের দুশচিন্তা দূর করে দিবে আল্লাহ তালা ।
৩। আল্লাহ আপনার রিজিকের বেবস্থা করে দিবে ।
৪। সব সময় যে ইস্তেগফার পরে আল্লাহ তালার কোনো আযাব ওই বান্দার উপর আসে না ।
৫। বারবার ইস্তেগফার পড়লে আল্লাহ আপনার সকল দোয়া কবুল করবেন ।

আরও পড়ুন: কোরবানি দেওয়ার সঠিক নিয়ম

প্রত্যেক দিন সকালে ঘুম থেকে উঠে এবং রাতে ঘুমানোর পূর্বে এবং দিনে সময় করে এই দোয়াটি অবশ্যই পড়বেন। যে ব্যক্তি দৃঢ় বিশ্বাসের সাথে এই দো‘আ পাঠ করবে, দিনে পাঠ করে রাতে মারা গেলে কিংবা রাতে পাঠ করে দিনে মারা গেলে, সে জান্নাতী হবে- এটি বলেছেন আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
error: